অধিকৃত পশ্চিমতীরের জর্ডান উপত্যকা ও মৃত সাগরের উত্তরাংশকে ইসরাইলের সঙ্গে যুক্ত করার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন অবৈধ রাষ্ট্রটির প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু।

মঙ্গলবার ইসরাইলের দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দরনগরী আশদোদে এক নির্বাচনী প্রচারে এসে এসব কথা জানালেন তিনি।

সপ্তাহখানেক বাদে অনুষ্ঠেয় প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনে জয়ী হয়ে আসতে পারলে এই এলাকাগুলোতে ইসরাইলি সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠা করা হবে বলে তিনি ঘোষণা দেন।

তবে সৌদি আরব, জর্ডান ও তুরস্ক এ ঘোষণার নিন্দা জানিয়েছে। একে আগ্রাসন আখ্যায়িত করে এটিকে বিপজ্জনক পদক্ষেপ বলে নিন্দা করেছে আরব লিগ।

ওই নির্বাচনী সমাবেশে তার দেয়া ভাষণ ইসরাইলের প্রধান টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়। ওই ভাষণেই এ পরিকল্পনার বিস্তারিত তুলে ধরেন নেতানিয়াহু।

এসব এলাকাকে ইসরাইলের পূর্বাঞ্চলীয় সীমান্ত উল্লেখ করে তিনি বলেন, আজ আমি আমার পরিকল্পনা ঘোষণা করছি- নতুন সরকার গঠিত হওয়ার পর, জর্ডান উপত্যকা ও মৃত সাগরের উত্তরাংশে ইসরাইলি সার্বভৌমত্ব কায়েম করতে চাই। নেতানিয়াহু বলেন, এটি করার জন্য আমি আপনাদের কাছ থেকে, ইসরাইলের নাগরিকদের কাছ থেকে, পরিষ্কার রায় পেলে তাৎক্ষণিকভাবে পদক্ষেপ নিতে পারব।

এক বিবৃতিতে ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস বলেন, নেতানিয়াহু যদি এমন কোনো উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে যান, তবে ইসরাইলের সঙ্গে সই হওয়া সব চুক্তি ও বাধ্যবাধকতার অবসান ঘোষণা করা হবে।

এ অবস্থায় ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার(ওআইসি) জরুরি বৈঠক ডেকেছে সৌদি আরব। জর্ডান উপত্যকা ও মৃত সাগরের উত্তরাংশ পশ্চিমতীরের এক-তৃতীয়াংশ এলাকাজুড়ে বিস্তৃত।

১৯৬৭ সালের যুদ্ধে পশ্চিমতীর দখল করে নেয় ইসরাইল। ফিলিস্তিনিরা তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রে অন্তর্ভুক্ত করতে চায় এ অঞ্চলটিকে।

ফিলিস্তিনি মুক্তি আন্দোলনের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা হানান আশরাইয়ি এক টুইটার পোস্টে বলেন, সব ঐতিহাসিক ফিলিস্তিনের ওপর একটি বিশাল ইসরাইলকে চাপিয়ে দিতে চান নেতানিয়াহু। তিনি একটি জাতিগত নিধনের পরিকল্পনা এঁটেছেন।

তিনি বলেন, এটি একেবারেই অসম্ভব। ভয়াবহ আগ্রাসন ও চিরস্থায়ী সংঘাতের দিকে ঠেলে দেবে।



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews