বিরাট কোহলির ফর্ম ভালো নেই। কোহলির হয়তো মনও ভালো নেই।

দলের ফর্মে হঠাৎ একটু ভাটার টান পড়েছে। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে পাঁচ টি-টোয়েন্টির সিরিজে ভারত ৫-০ ব্যবধানে জিতলেও তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজটা ৩-০ ব্যবধানে হেরেছে তারা। কোহলির নিজের ব্যাটেও হঠাৎ যেন ছন্দ নেই। সিরিজজুড়ে নিউজিল্যান্ডের ফাস্ট বোলার টিম সাউদির বিপক্ষে নড়বড়ে মনে হয়েছে তাঁকে। টি-টোয়েন্টি সিরিজে পাঁচ ম্যাচের চারটি খেলেছেন, এরপর তিন ওয়ানডে—সর্বশেষ সাতটি আন্তর্জাতিক ম্যাচে কোহলির ইনিংসগুলো এমন— ৪৫, ১১, ৩৮, ১১, ৫১, ১৫, ৯। মাত্র একটি ফিফটি, চল্লিশোর্ধ্ব ইনিংস মাত্র দুটি। নামটা কোহলি বলেই তথ্যটা চমকে দেয়।

কোহলি নিজেও ভাবছেন এ নিয়ে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজ শুরু হবে আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি, তার আগে অনুশীলনে কোহলিকে দেখার অভিজ্ঞতা দেখে ভারতীয় এক ক্রিকেট সাংবাদিক লিখেছেন, কোহলি উদ্বিগ্ন, মরিয়া হয়ে উঠেছেন। আর রানে ফিরতে ফিরে যাচ্ছেন তাঁর ব্যাটিংয়ের পুরোনো কৌশলে।

পুরোনো কৌশলটা কী? ৩১ বছর বয়সেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৭০টি সেঞ্চুরি আর ২৭ হাজার ২০৭ রান করে ফেলা কোহলির ব্যাটিংয়ের অন্যতম বড় দিক—নিজে বলের দিকে এগিয়ে যাওয়ার চেয়ে বলের জন্য অপেক্ষায় থাকা। রান না পাওয়ার সময়টাতে সেটি কিছুটা বিস্মৃত হয়ে যাওয়া কোহলি টেস্টের আগে অনুশীলনে সেদিকেই আবার ফিরছেন।

ছন্দে ফিরতে কতটা মরিয়া কোহলি, সেটির প্রমাণ তো মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে গত মঙ্গলবার তৃতীয় ওয়ানডের পরই বোঝা গেছে। ৯ রানে আউট হয়ে যাওয়া কোহলি ড্রেসিংরুমে ফিরে প্যাডও খোলেননি। উল্টো নেটে গিয়ে ৪০ মিনিট অনুশীলন করে এসেছেন।

‘তাঁর ক্যারিয়ারেরই অন্যতম অদ্ভুতুড়ে ওয়ানডে ইনিংস খেলেছিলেন সেদিন কোহলি’—ভারতীয় দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে লেখা হয়েছে। সেখানে আরও লেখা, সেদিনের ওই হঠাৎ আয়োজিত ব্যাটিং সেশনে কোহলির মনোযোগ ছিল ‘মূলত ব্যাটে-বলে সংযোগ করানোর দিকে।’

এরপরই প্রতিবেদনে থাকল কোহলির উদ্বেগ আর মরিয়া হয়ে যাওয়ার প্রসঙ্গ, ‘কোহলির এই দিকটা বুঝিয়েছে যে বিশ্বসেরারাও মাঝে মধ্যে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন, যদি সেটাকে মরিয়া হয়ে পড়া না বলতে চাই আমরা। উদ্বেগটা তাঁরা যে সাফল্যে অভ্যস্ত, সেটি ফিরে পেতে। যদিও মাঝে মধ্যে কিছু সময় তাদেরও সাফল্য বঞ্চিত থাকতে হয়।’

কোহলির এই একটুখানি ছন্দপতনের কারণ বিশ্লেষণে প্রতিবেদনে লেখা, ‘কোহলির এই উদ্বেগ বোঝায়, যা কিছু তাঁদের সাফল্যের নেপথ্যের কারণ, যা কিছু মৌলিক, বিশ্বসেরারাও মাঝে মধ্যে সেগুলোকে এমনিতেই হয়ে যাবে বলে ধরে নেন। কোহলির ক্ষেত্রে যেটি (ব্যাটিংয়ের মৌলিক দিক) হচ্ছে বলকে নিজের দিকে আসার জন্য অপেক্ষা করা, সেটিকে তাড়া করা নয়। আর ম্যাচের মধ্যেই সেদিন কোহলির ওই ব্যাটিং সেশনের লক্ষ্যই ছিল যে ব্যাপারগুলো তাঁর পক্ষে সব সময় কাজ করেছে, সেগুলোর দিকে মনোযোগ ফেরানো।’

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতের প্রথম টেস্ট ওয়েলিংটনে শুরু হচ্ছে আগামী শুক্রবার। তার আগে আজ থেকে হ্যামিল্টনে নিউজিল্যান্ড একাদশের বিপক্ষে একটা তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলছে ভারত।



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews