লক্ষ্যটা বেশ বড়ই ছিল। কিন্তু তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকারের ব্যাটিংয়ের সামনে ৩৩২ রানের লক্ষ্যটাও ছোট হয়ে গেলো। তবে শেষ পর্যন্ত আলোকস্বপ্লতার কারণে ম্যাচ শেষ পর্যন্ত যায়নি। কিন্তু বাংলাদেশ ৫১ রানের জয় পায়।

৯ ডিসেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। এই সিরিজকে সামনে রেখে বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) সাভারের বিকেএসপি মাঠে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে উইন্ডিজ ও বিসিবি একাদশ। 

ম্যাচে উইন্ডিজদের দেওয়া ৩৩২ রানের বড় লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ওপেনার তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েসে ঝড়ো সূচনা করে বাংলাদেশ। দুর্দান্ত সেঞ্চুরি তুলে নেন টাইগার ওপেনার তামিম ইকবাল। ইনজুরি থেকে ফিরে প্রথমবারের মতো ব্যাট করতে নেমেই সেঞ্চুরির দেখা পান তিনি। 

তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস মিলে ৮১ রানের জুটি গড়েন। ব্যক্তিগত ২৭ রানে চেজের বলে হেটমায়ারের ক্যাচে পরিণত হয়ে ফেরেন ইমরুল। ইমরুলের বিদায়ের পর সৌম্য সরকারকে নিয়ে এগিয়ে যান তামিম। ৩৪ বলে ৮ চার ও ১ ছক্কায় ৫০, ৭০ বলে ১৩ চার ও ৩ ছক্কায় সেঞ্চুরিও তুলে নেন। 

কিন্তু দলীয় ১৯৫ রানের মাথায় ব্যক্তিগত ১০৭ রানে চেজের বলে স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হয়ে ফেরেন তিনি। আউট হওয়ার আগে ৭৩ বলে ১৩টি বাউন্ডারি ও ৪টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন এই বাঁহাতি ওপেনার। 

ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার নেতৃত্বে বিসিবি একাদশ ও উইন্ডিজদের মধ্যকার প্রস্তুতি ম্যাচ চলছে সাভারের বিকেএসপিতে। ম্যাচে বিসিবি একাদশের সামনে ৩৩২ রানের বড় লক্ষ্য দিয়েছে উইন্ডিজ।

বিসিবি একাদশ হলেও বাংলাদেশ দল বেশ শক্তিশালী। দলে মাশরাফি ছাড়াও আছেন তামিম ইকবাল, রুবেল হোসেন, সৌম্য সরকার, নাজমুল হাসান অপুদের মতো জাতীয় দলের নিয়মিত ক্রিকেটার। কিন্তু উইন্ডিজরা তাদের পূর্ণ শক্তি নিয়েই প্রস্তুতি ম্যাচে খেলতে নামে ও রানের পাহাড় গড়ে তোলে।

নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে উইন্ডিজের সংগ্রহ ৩৩১ রান। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮১ রান করেন শাই হোপ। এছাড়া ৬৫ রানে অপরাজিত থাকেন রোস্টন চেজ।

বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় উইন্ডিজ। ইনিংস শুরু করতে নেমে বেশ দেখেশুনেই শুরু করেন দুই ওপেনার শাই হোপ ও কাইরন পাওয়েল। মাশরাফি ও রুবেলের শুরুর ১০ ওভার শেষে যেনো ঝড় শুরু হয় দুই উইন্ডিজের ব্যাটে। 

১৫ ওভারে দুই ওপেনার স্কোরকার্ডে জমা করেন ১০১ রান। ১৬তম ওভারে এই শতরানের জুটি ভাঙেন স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপু। ব্যাক্তিগত ৪৩ রানে ইমরুল কায়েসের হাতে ক্যাচে তুলে দিয়ে ফেরেন কাইরন পাওয়াল। ড্যারেন ব্রাভোকে নিয়ে রানের গতি সচল রাখেন হোপ। তবে এই জুটি খুব বেশি বড় হতে দেননি মেহেদি হাসান রানা।

আকবর আলির ক্যাচে পরিণত করে  তিন নম্বরে নামা ড্যারেন ব্রাভোকে সাজঘরে পাঠান তরুণ এই বাঁহাতি পেসার। আউট হয়ে ফেরার আগে  ৩৩ বলে ২৭ রান করেন ব্রাভো। শাই হোপকে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানান অপু। আউট হওয়ার আগে ৮৪ বলে তিন ছক্কা ও ছয়টি চারে ৮১ রান আসে হোপের ব্যাট থেকে।

দ্বিতীয় স্পেলে বোলিংয়ে এসে ৫ রান করা মারলন স্যামুয়েলসক ফেরান অধিনায়ক মাশরাফি। ক্যারিবীয় অধিনায়ক রোভম্যান পাওয়েলকে রানের খাতা খোলার আগেই ফেরান তরুণ স্পিনার শামিম পাটোয়ারী। 

এরপর শিমরান হেটমায়ার ও ফ্যাবিয়ান অ্যালেন মিলে কিছুটা প্রতিরোধ গড়তে চাইলেও রুবেলের তা হতে দেননি। হেটমায়ারকে ৩৩ রানে ফিরিয়ে দেন এই পেসার। ডানহাতি এই পেসারের দ্বিতীয় শিকার হন ফ্যাবিয়ান অ্যালেন। হাফ সেঞ্চুরি থেকে ২ রান দূরে থেকে ফেরেন তিনি।

তবে ৫১ বলে চেজের ৬৫ রানের ঝড়ো ইনিংসে ৩০০ পারিয়ে যায় ক্যারিবীয়রা। ছয়টি চার ও এক ছক্কায় ৬৫ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। সর্বশেষ ৮ উইকেট হারিয়ে উইন্ডিজের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩৩১।

বিসিবি একাদশের পক্ষে দুটি করে উইকেট নেন রুবেল, নাজমুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান রানা। এ ছাড়া মাশরাফি বিন মুর্তজা ও শামীম পাটোয়ারি নেন একটি করে উইকেট।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ঝড়ো শুরু করেন বাংলাদেশের ওপেনার তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস। ১০ ওভারেই দলীয় স্কোর ছাড়িয়ে গেছে ৮০ রান। 

তামিম এরই মধ্যে হাফসেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন। তবে দলীয় ৮১ রানে ২৫ বলে ২৭ রান করে ফেরেন ইমরুল কায়েস। উইকেটে তামিমের সঙ্গে আছে সৌম্য সরকার। 

বাংলাদেশ সময়: ১৫১৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৮

এমকেএম



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews